কিছু পুরুষ ক্লাবে বইসা মদ খায়। সেই মদের আসরে নারীও থাকে। কিন্তু পুরুষেরা সেই নারীদের মানুষ বা বন্ধু ভাইবা

 কিছু পুরুষ ক্লাবে বইসা মদ খায়। সেই মদের আসরে নারীও থাকে। কিন্তু পুরুষেরা সেই নারীদের মানুষ বা বন্ধু ভাইবা একসাথে মদ গিলে না। তাদের মাথায় থাকে যে ‘‘বেশ একটা মাইয়া মানুষ সাথে নিয়া মদ খাচ্ছি। খুউব আনন্দ হচ্চে ব্রাদার।’’


কিছু পুরুষ নারীর সাথে কাজ করে। কিন্তু তাদের মাথায় এইটা থাকে না যে একজন মানুষ সহকর্মীর সাথে কাজ করতেসে। তাদের মাথায় খেলে- ‘‘বেশ একটা মাল অফিসে ঘুত্তেসে।’’

কিছু পুরুষ নারীর সাথে বিজনেস ডিল করে। ক্ষমতাধর নারীর সাথে চুক্তি সই করে। তাদের মাথায় ঘুরে, ‘‘মাগী শুয়ে শুয়ে এই ব্যবসা দাড়া করাইসে। মাগীরে আমিও ছাইড়া দিমু না।’’

কিছু পুরুষ নারীর সাথে রাজনীতি করে। তার পাশে দাঁড়ায়ে শ্লোগান দেয়া নারীরে তার মানুষ রাজনৈতিক কর্মী মনে হয় না। মনে হয় একটা এমন প্রাণি যার ‘‘বাড়িতে থাকার কথা, কিন্তু বের হয়া রাস্তায় মিছিল করতেসে। চেয়ারম্যান, এমপি হইতে চায়। মাগী কোন মন্ত্রীর সাথে শুয়া এই জায়গায় যাবে কে জানে। তার আগে আমার সাথে শুক না কেন!’’

কিছু পুরুষ নারীর সাথে প্রেম করে। প্রেমের সময় মাথায় থাকে না যে এই মানুষটাকে ভালবাসতেই সম্পর্ক হইসে। তাদের মাথায় থাকে দুইটা স্তন, যোনী, উরু, নিতম্ব ইত্যাদি। 


কিছু পুরুষের মগজের ভিত্রে থাকা এইসব গুয়ের খবর কিছু নারী টের পেয়ে যায়। তারা তখন তাদের সাইজ কইরা দেয়। সেই নারীদের বলা হয় বেশ্যা। বেশ্যা ডাক শুনে কোনো কোনো মেয়ে ভয় পেয়ে যায়। ভয়ে তারা চুপ হয়ে যায়। আবার কোনো কোনো মেয়ে বেশ্যা ফেশ্যায় দুই পয়সা ভয় না পেয়ে উল্টা চ্যালেঞ্জ করে বসে। 

পুরুষ তখন তাদের ডাকে- নারীবাদী।


© Moonmoon Sharmin Shams