লকডাউনে রাস্তায় নার্সের স্কুটি থামিয়ে চড় চন্দননগর পুলিসের! ভিডিয়ো ভাইরাল হতেই বিতর্ক

লকডাউনে রাস্তায় নার্সের স্কুটি থামিয়ে চড় চন্দননগর পুলিসের! ভিডিয়ো ভাইরাল হতেই বিতর্কডিউটিতে যাচ্ছি, বিশ্বাস না হলে আমার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ফোনে কথা বলে নিন।'- নার্সের কথা বিশ্বাস করতে চাননি লকডাউনের রাতে রাস্তায় কর্তব্যরত চন্দননগর থানার মহিলা পুলিস কনস্টেবল। তিনি তাঁর পথ আটকেছিলেন। শুধু তাই নয়, নার্সের গালে সপাটে মারেন চড়! আর গোটা ঘটনার ভিডিয়ো প্রকাশ্যে আসতেই নিন্দার ঝড় সর্বত্র।


সিঙ্গুর থেকে স্কুটি নিয়ে ডিউটি করতে যাচ্ছিলেন চন্দননগর মহকুমা হাসপাতালে অদিতি সিংহ রায় নামে এক নার্স। হাসপাতালের কিছু আগেই তাঁর গাড়ি আটকায় চন্দননগর থানার পুলিশ কর্মীরা। অদিতি তাঁদের জানান, তাঁর গাড়িতে স্টিকার লাগানো রয়েছে, যে  তিনি একজন নার্স। চন্দননগর মহকুমা হাসপাতালের কর্মী।, কিন্তু ওই মহিলা কনস্টেবল কোনও কিছু ভাবেই মানতে চাননি তাঁর কথা। শুরু হয় বাদানুবাদ।
খাবার টাকাও শেষ কিছু করুন, আকুল আবেদন চিকিত্সা করাতে এসে হাওড়ায় আটক ত্রিপুরার পরিবারের
 যদিও অদিতির দাবি, তিনি তাঁর হাসপাতালের উর্দ্ধতনের সঙ্গে কথা বলিয়ে দেবেন বলেও ওই মহিলা কনস্টেবলকে বলেন। কিন্তু অভিযোগ, ওই মহিলা কনস্টেবল ফোন ধরতে চান নি। অদিতি এরপর ওই পুলিসকর্মীকে বলেন, "আপনি কেন আমাকে হ্যারাস করছেন?" 
নিগৃহীত নার্স
অদিতির অভিযোগ, এরপরই ওই মহিলা কনস্টেবল রেগে গিয়ে তাঁকে চড় মারেন। ঘটনায় বিস্মিত, মর্মাহত ওই নার্স। নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একেবারে সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে লড়াই করছেন তাঁরা। অথচ তাঁদেরকেই এইভাবে প্রকাশ্যে হেনস্থা হতে হল। এবিষয়ে সিপি বলেছেন. বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। অভিযুক্তের কড়া শাস্তি হবে।
সেদিনের গোটা ঘটনাটি মোবাইলবন্দি করেছিলেন এক ব্যক্তি। সেই ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই নিন্দার ঝড় সর্বত্র।