গোয়েন্দা জোটের গবেষণা তথ্যে চীনের ‘তথ্য গোপন’ ফাঁস!

বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনা ভাইরাসের উৎস নিয়ে চীন যাবতীয় তথ্য গোপন অথবা ধ্বংস করেছে বলে এক গবেষণামূলক তথ্যে দাবি করেছে গোয়েন্দা জোট ‘ফাইভ আইস’। চীনের এ তথ্য গোপনীয়তাকে আন্তর্জাতিক স্বচ্ছতার ওপর হামলা বলেও অভিহিত করা হয়েছে ১৫ পৃষ্ঠার ওই প্রতিবেদনে। 

স্থানীয় সময় শনিবার যুক্তরাষ্ট্রের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা মার্কিন সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজকে এ তথ্য জানান।

‘ফাইভ আইস’ জোট মূলত যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও কানাডার গোয়েন্দাদের সমন্বয়ে গঠিত। এই জোটের মাধ্যমে উল্লিখিত ৫টি দেশ নিজেদের মধ্যে গোয়েন্দা তথ্য ভাগাভাগি করে থাকে।

ওই গবেষণা প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, গেল বছরের ৩১ ডিসেম্বরের পর থেকে চীন সার্চ ইঞ্জিন ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ভাইরাসটির সংবাদ সেন্সর করা শুরু করে। চীনের স্বচ্ছতার অভাব দেখলেই বোঝা যায়, তারা যে করোনা ভাইরাস নিয়ে তথ্য গোপন করছে।

ফাইভ আইস-এর প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, গত ৩ জানুয়ারি চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন ভাইরাসের নমুনাগুলো ধ্বংস করার নির্দেশ দেয়ার পাশাপাশি ভাইরাসটি সম্পর্কে একটি ‘প্রকাশনা আদেশ’ জারি করে। ভাইরাসটি সংক্রমণের পর চীন তাদের অভ্যন্তরীণ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলেও শুরুতে বিদেশ ভ্রমণ সচল রেখেছিল। যার ফলে ভাইরাসটি সহজেই বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ে। অন্যদিকে মানব সংক্রমণের প্রমাণ মিললেরও ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত সেই তথ্য অস্বীকার করে চীন।

ফক্স নিউজের প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, ভাইরাসটি চীনের উহান শহরের বায়রোলজি ল্যাব থেকে ছড়িয়েছে বলে দাবি যুক্তরাষ্ট্রের। তবে বরাবরই সেটি অস্বীকার করছে চীন। যদি এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম অভিমতও রয়েছে। যেমন- অস্ট্রিলিয়া মনে করছে, চীনের একটি বাজার থেকে ছড়িয়েছে ভাইরাসটি, চীন এ দাবির সঙ্গে একমত। তবে বিষয়টি মানতে নারাজ যুক্তরাষ্ট্র।