ভরা হাটে থাপ্পড় খেয়েও নারী বলবে ‘পতি পরম গুরু’?

Thappad Movie Reviewঅভিনয়ে: তাপসী পান্নু, পাভেল গুলাতি, দিয়া মির্জা, তনভি আজমি, কুমুদ মিশ্র, রাম কাপুর, অঙ্কুর রাথী, রত্না পাঠক শাহ, মানব কৌল
পরিচালক: অনুভব সিনহা
রেটিং: ৪/৫ 
‘থাপ্পড়' (Thappad) শুধুই ছবি? বোধহয় না। পরিচালক অনুভব সিনহার এই ছবি দেখে দর্শক বলছেন, মুলক (Mulk) বা আর্টিকল ১৫-র (Article 15) থেকেও এই ছবি যেন আরও বেশি মজ্জায় মজ্জায় ঝড় তুলেছে। প্রশ্ন তুলেছে চিরকেলে পুরুষতান্ত্রিক সমাজের প্রতি। সেই প্রশ্ন অনুরণিত হলের বাইরেও।

‘থাপ্পড়' দিল্লির গৃহকর্মী অমৃতা সাবেরওয়ালের (Taapsee Pannu) গল্প। ছোট পরিবার সুখী পরিবার তাঁর। স্বামী বিক্রম  (Pavail Gulati) কাজের নেশায় মশগুল। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত শাশুড়ি (Tanvi Azmi)-র দেখভাল করতে গিয়ে নিজের সমস্ত সাধ-আহ্লাদের গলা টিপে মেরে ফেলেছেন তিনি। কিন্তু তাই নিয়ে অমৃতার কোনও আপশোস ছিল। সেই ছবিই বদলে গেল সেদিন, যেদিন ঘরোয়া পার্টিতে একঘর লোকের সামনে তাঁর গালে ঠাসিয়ে থাপ্পড় মারলেন বিক্রম। এরপরেও একজন মেয়ে মুখ বুঁজে সব মেনে নিয়ে বলবেন ‘পতি পরম গুরু‘?

19otd7t
Thappad Movie Review: ছবির দৃশ্য
স্বাভাবিক ভাবেই বিদ্রোহী অমৃতা। প্রশ্ন উঠতেই পারে, একটা থাপ্পড়ই কি মন বা বিয়ে ভাঙার জন্য যথেষ্ট? পাল্টা প্রশ্ন কিন্তু সঙ্গে সঙ্গে করবেন এযুগের নারী, হাটের মাঝে মেয়েদের এই অপমানও কি যুক্তিযুক্ত! একজন নারী যদি এভাবেই ঘরভরতি লোকের মাঝখানে তাঁর স্বামীর গালে কষিয়ে থাপ্পড় মারেন! স্বামী অম্লান বদনে মেনে নেবেন তো? যদিও অমৃতার ভাই (Ankur Rathee) মিটমাটের পরামর্শ দেন। আইনজীবীর কাছে যাওয়ার আগে কিছুদিন সময়ও নেন অমৃতা। কিন্তু শেষপর্যন্ত আত্মসম্মানী অমৃতা নিজের সম্মান বাঁচাতেই দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হন।
j9ca32t8
Thappad Movie Review: ছবির দৃশ্য

থাপ্পড়কে কেন্দ্র করে এরপর আবর্তিত হতে থাকে ছবি। যেখানে বলা হয়েছে, একটা চড় নারী-পুরুষ উভয়ের কাছেই সমান অপমানের। শুধু নারী বা পুরুষের কাছে নয়। এই অপমানের স্বীকার যিনি হয়েছেন একমাত্র তিনিই জানেন, বন্ধ-ফাঁকা ঘরেই হোক বা লোকের সামনে, এভাবে দৈহিক আঘাত কতখানি মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত করে তোলে একজন মানুষকে।  
4l5gaqmo
Thappad Movie Review: ছবির দৃশ্য
একইসঙ্গে বলা হয়েছে, আমাদের সমাজ, আমাদের দেশ বিবাহ নামক প্রতিষ্ঠানকে যেভাবে সম্মান করে থাপ্পড়ের মতো দৈহিক অপমান কিন্তু তাতে চিড় ধরাতে যথেষ্ট। যদিও প্রতিষ্ঠান বাঁচাতে পাত্র এবং পাত্রীপক্ষ উভয় তরফই মানিয়ে নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে এসেছেন, আগামী দিনেও দেবেন কেবলমাত্র মেয়েদের। পুরুষকে কিন্তু এমন অপমানজনক কাণ্ড ঘটানোর পরেও শাসন করবে না সমাজ। তার বা তার স্ত্রীর পরিবার।
অমৃতার ক্ষেত্রেও এক অন্যথা হয়নি। যেভাবে অমৃতার মা (Ratna Pathak Shah) ভালো নাচ জানার পরেও সব ছেড়ে দিয়েছিলেন স্বামী-সংসাদ-পরিবারের মুখ চেয়ে। সেভাবে অমৃতাও নিজেও গান ছেড়েছেন একই কারণে। তারপরেও পার্টিতে তাঁর গালে সপাটে চড় কষাতে একটুও অস্বস্তি হয়নি তাঁর স্বামীর!
sug9nh9
Thappad Movie Review: ছবির মুহূর্ত.

অনুভব সিনহা ও Mrunmayee Lagoo-র চিত্রনাট্য এখানেই প্রশ্ন তুলেছে।  ছবিতে প্রত্যেকের চরিত্রে প্রত্যেকে নিখুঁত। 'বিক্রম' পাভেল, 'অমৃতা' তাপসী পান্নু তাঁদের বাবা, প্রতিবেশি সুখী সিঙ্গল মাদার শিবানি (Dia Mirza) সফল মহিলা আইনজীবী নেত্রা জয়সিংহ (Maya Sarao) সবাই। প্রত্যেকেরই বিবাহিত জীবন নিয়ে কমবেশি তেতো অভিজ্ঞতা। যেমন, নেত্রার স্বামী জনপ্রিয় চ্যানেলের সেলেব অ্যাঙ্কর (Manav Kaul)। তিনি নেত্রাকে পরামর্শ দেন, দুঁদু আইনজীবী শ্বশুরমশাই ও নামি স্বামীর নাম কাজে লাগিয়ে কেরিয়ার আরও পোক্ত করার। যদিও এই পরমর্শ মেনে নেননি নেত্রা। ফলস্বরূপ, ভালোবাসাহীন বিয়ে বহন করে নিয়ে চলতে বাধ্য হন তিনি।
থাপ্পড় আরও দেখিয়েছে, আমাদের সমাজে মেয়েদের গায়ে হাত তোলা কোনও ব্যাপারই নয়। উচ্চবিত্ত থেকে মধ্যবিত্ত হয়ে নিম্নবিত্ত---সব ঘরে অনায়াসে প্রায় বা রোজই বউ ঠ্যাঙানোর রীতি আছে এদেশের সব জাতি-ধর্মে। উচ্চবিত্তরা ঘরে লাউডস্পিকার চালিয়ে এই কাজ করে। মধ্য এবং নিন্নবিত্তরা লোকলজ্জার ধারই ধারে না। সেই মেয়ে বা বউ পরের দিন মারের কালশিটে দাগ লুকোয় 'পড়ে আঘাত পেয়েছি'---এই মিথ্যে স্তোকবাক্যে। সেই ছবি ভীষণ স্পষ্ট এই ছবিতে।
6cio1gp
Thappad Movie Review: ছবির দৃশ্য

আইনজীবীর কাছে তাই অমৃতার একটাই চাওয়া, যে সম্মান আর আনন্দের মধ্যে দিয়ে তিনি বড় হয়েছেন সেগুলো যেন ফিরিয়ে দেন তিনি। কারণ, এতদিনে অমৃতা বুঝেছেন, শব্দ দুটির প্রকৃত অর্থ। যদিও আইনি লড়াইয়ের সময়েও তাঁকে সতর্ক করা হয়, গার্হস্থ্য হিংসা ঘরের বাইরে আনা ঠিক পথে হাঁটা নয়। কিন্তু অমৃতার যুক্তি, এরপরেও যদি তিনি বলেন, তিনি সুখী, তাহলে বিশাল বড় মিথ্যে বলবেন। তাই তিনি আর সম্পর্কের বোঝা টানতে রাজি নন।
এভাবেই নারী বা পুরুষ কোনও একজনের পক্ষ না নিয়ে নিরপেক্ষ ভাবে এই দৈহিক অপমানের প্রতিবাদ জানিয়েছে ছবি। থাপ্পড়কে কেন্দ্রে রেখে উঠে এসেছে একাধিক দাম্পত্য কাহিনি। সামনে এসেছে আধুনিক এবং আগের দাম্পত্যের উত্থান-পতন, সংঘর্ষ, মেনে নেওয়া, মানিয়ে নেওয়ার অতিচেনা বাস্তব।
l5um1vlg
Thappad Movie Review: ছবির দৃশ্য

এর আগেই বলা হয়েছে, প্রত্যেক অভিনেতা তাঁর চরিত্রে জীবন্ত। এবার বিস্তৃত বর্ণনা। পাভেল বিক্রমের চরিত্রে আঠেরো আনা খাঁটি। প্রথমে ভালো স্বামী, তারপর থাপ্পড়কে কেন্দ্র করে তার একটু একটু করে আসল চেহারা সামনে আনা---এই ভারসাম্য অদ্ভুত ফুটিয়েছেন তিনি।


একই ভাবে পিঙ্ক ছবির পরে অমৃতা চরিত্রে নিখুঁত তাপসী পান্নু। স্বামীর সঙ্গে সুখী দাম্পত্য কাটানোর সময় তাপসী যেমন স্বাভাবিক, থাপ্পড় খাওয়ার পর তাঁর রাগ-ঘৃণা-অবজ্ঞা-প্রশ্ন ভীষণ অনায়াস। বিশেষ করে তাঁর মুখের ওই সংলাপ যা বারেবারে ঘুরেফিরে এসেছে ছবির বিভিন্ন মুহূর্তে, অমৃতা বলেছেন: "সির্ফ এক থাপ্পড়? নেহি মার সকতা!" গলার স্বরের ওঠাপড়া, অভিমান, অপমান, জেদ---মিলেমিশে একাকার হয়ে জীবন্ত অমৃতা তিনি।
Thappad তাই প্রতি ঘরের, সব মেয়ের মনে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে, ভরা হাটে থাপ্পড় খেয়েও আর কতদিন নারী বলবে ‘পতি পরম গুরু'?