যুক্তরাষ্ট্রে চীনা করোনা গবেষককে গুলি করে হত্যা

যুক্তরাষ্ট্রের পিটসবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের চীনা বংশোদ্ভূত অধ্যাপক বিং লিউয়ের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লিউয়ের সহকর্মীরা জানিয়েছেন, সম্প্রতি করোনা ভাইরাস নিয়ে গবেষণা করছিলেন লিউ। এবং তিনি গুরুত্বপূর্ণ অনুসন্ধানর দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গিয়েছিলেন। 

বৃহস্পতিবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিসিবির খবরে বলা হয়েছে, পেনসিনভেনিয়া অঙ্গরাজ্যের পিটসবার্গে নিজ বাসভবন থেকে ৩৭ বছর বয়সী এই চীনা অধ্যাপকের লাশ উদ্ধার করা হয়। 

স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে, লিউয়ের মাথা ও ঘাড়সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুলির আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। একইসময়ে হাও গু নামে এক বন্দুকধারীকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। লিউকে হত্যার পর নিজ গাড়িতে যাওয়ার সময় ওই বন্দুকধারী নিজে আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করছে পুলিশ। 

কর্তৃপক্ষ বলছে, ওই বন্দুকধারী একজন সফটওয়ার ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন। নিউয়ের সঙ্গে তার আগে থেকেই পরিচয় ছিল। 

তবে তদন্তকারীরা এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি, করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত বর্তমান পরিস্থিতি ও গবেষণাকে কেন্দ্র করে লিউকে হত্যা করা হয়েছে কিনা। 

লিউয়ের হত্যাকাণ্ডকে ঘিরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে জোর গুঞ্জন চলছে। 

চীনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের প্ল্যাটফর্ম ওয়েবোর এক ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘সম্ভবত লিউ জেনে গিয়েছিলেন, যুক্তরাষ্ট্রের কোন ল্যাব থেকে করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে। সেজন্যই হয়তো তাকে হত্যা করা হয়েছে।’

করোনা ভাইরাসের উৎপস্থিস্থল নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে পরস্পরবিরোধী অভিযোগ এখনও অব্যাহত আছে। চীনের অভিযোগ, যুক্তরাষ্ট্র এ ভাইরাস ছড়িয়েছে। তবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বারবারই উহান শহর থেকে এ ভাইরাস ছড়িয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন। এমনকি এই ভাইরাসকে শুরুর দিকে ‘চীনা ভাইরাস’ নামেও অভিহিত করেছিলেন তিনি।