করোনাভাইরাসের ৭টি কম পরিচিত লক্ষণ

অত্যন্ত সংক্রামক করোনাভাইরাস বিশ্বজুড়েই সক্রিয় হয়ে উঠেছে। বিভিন্ন দেশে কঠোর লকডাউন এবং সামাজিক দূরত্বের প্রোটোকল দিয়ে করনোভাইরাস থেকে বাঁচার চেষ্টা চলছে। বিজ্ঞানী এবং চিকিৎসা গবেষকরা করোনাভাইরাসের ভ্যাক্সিন তৈরির জন্য দ্রুত গতিতে কাজ করছেন। এর পাশাপাশি করোনাভাইরাসের লক্ষণগুলোর একটি গ্রহণযোগ্য তালিকা তৈরিতেও চেষ্টা করে যাচ্ছেন তারা।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, বেশিরভাগ লোক হালকা থেকে মাঝারি অসুস্থতার অভিজ্ঞতা নিতে পারে এবং হাসপাতালে ভর্তি না করেই রোগ থেকে সেরে উঠতে পারে।
প্রাথমিকভাবে, শুকনো কাশি, জ্বর, শ্বাসকষ্ট এবং অবসন্নতা করোনাভাইরাসের লক্ষণ হিসাবে বলা হয়েছিল, তবে এই রোগটি বিভিন্ন বয়সের লোকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়তে থাকায় আরও নতুন লক্ষণ দেখা দিচ্ছে। ভাইরাস কীভাবে আচরণ করে সে সম্পর্কে আরও জানার জন্য, এখন অবধি করোনাভাইরাসের সকম পরিচিত লক্ষণগুলো সম্পর্কে জেনে নিন-
ডায়রিয়া, বমি এবং বমি বমি ভাব: ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত একটি সম্পাদকীতে উল্লেখ করা হয়েছে যে সংক্রমণের প্রাথমিক প্রকাশ গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ট্র্যাক্টে সংক্রামিত হয়ে ডায়রিয়ার কারণ হতে পারে। এটি নিউরোলজিকাল জড়িত হওয়া বা সাইটোকাইনের উত্পাদনের মাধ্যমে বমি বমিভাব, বমি বমি ভাব এবং পেটে ব্যথার মতো লক্ষণও দেখা দিতে পারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে রোগীদের একটি স্বল্প শতাংশের ক্ষেত্রে (৫%) বমি বমি ভাব এবং বমিকে করোনাভাইরাসের লক্ষণ হিসেবে রিপোর্ট করা হয়েছে।
পিংক আই: চীনের সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায় দেখা গেছে যে করোনাভাইরাসের কারণে কিছু রোগীর মধ্যে পিংক আই বা কনজেক্টিভাইটিসের লক্ষণ দেখা দিতে পারে। কনজেক্টিভা হলো একটি স্পষ্ট পাতলা ঝিল্লি যা চোখের পাতার অভ্যন্তরের পৃষ্ঠে দেখা দেয়। কনজেন্টিভাতে সংক্রমণ আরও গুরুতর রোগের রোগীদের মধ্যে দেখা যায়।
র‍্যাশ এবং রক্ত জমাট বাঁধা: প্রতিবেদন অনুসারে, শিশুদের মধ্যে একটি নতুন সিনড্রোম প্রকাশিত হচ্ছে যা করোনাভাইরাসের সাথে যুক্ত বলে মনে হচ্ছে। এই বিরল লক্ষণগুলোর মধ্যে ফুসকুড়ি, র্যাশ ছাড়াও জ্বর, শুষ্ক ঠোঁট এবং ফুলে যাওয়া চোখ অন্তর্ভুক্ত। ইতালি থেকে প্রাপ্ত একটি প্রাথমিক প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে যে ৮৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগীর একটি গ্রুপে ২০ শতাংশ ক্ষেত্রে ত্বকের বিভিন্ন ধরণের লক্ষণ তৈরি করেছে। যেমন লাল ফুসকুড়ি, ছত্রাক, ফোসকা এবং রক্ত জমাট বাঁধা।
চিলব্লায়েন্স: করোনাভাইরাসের রোগীদের পায়ের আঙ্গুল বা আঙুলের ফাঁকে চিলব্লিনের অনুরূপ একাধিক ক্ষত ছড়াতে পারে। এটি অল্প বয়স্ক এবং শিশুদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। আঙুল বা পায়ের আঙ্গুলের এই বর্ণনাকে এখন কোভিড পদাঙ্গুলি বলা হয়।
মাথাব্যাথা: করোনাভাইরাস বিভিন্ন ব্যক্তিকে ভিন্নভাবে প্রভাবিত করে বলে মনে হচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ১৪ শতাংশ মাথাব্যথার শিকার হন।
মাথা ঘোরা: ওহানের হুয়াহং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক পরিচালিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, করোনা রোগীদের ৩৬ শতাংশই মাথাব্যথা এবং মাথা ঘোরা অনুভব করেছেন। কিছু রোগীর ক্ষেত্রে শ্বাসকষ্টের লক্ষণ ছাড়াও মাথা ঘোরার সমস্যা দেখা গেছে। অন্যদের মধ্যে মাথা ঘোরা সহ স্নায়বিক লক্ষণ ছিল। এটি লক্ষণীয় যে আপনি যদি মাথার চুলকানি বা মাথা ঘোরা অনুভব করেন তবে অবশ্যই চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।
স্বাদ বা গন্ধের ক্ষতি: প্রাথমিকভাবে সাধারণ লক্ষণ হিসাবে মনে করলেও স্বাদ এবং গন্ধের ক্ষতি আসলে করোনাভাইরাসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ হতে পারে। সাম্প্রতিক গবেষণাগুলো পরামর্শ দেয় যে এই লক্ষণগুলো করোনভাইরাসের প্রধান লক্ষণগুলোর তালিকায় যুক্ত করা উচিত।