'শেষবারের মতো দেখতে চাই ওকে!', উত্তরপ্রদেশে মৃত স্বামীর কাছে যাওয়ার অনুমতি পেল না বর্ধমানের সুজাতা

'শেষবারের মতো দেখতে চাই ওকে!', উত্তরপ্রদেশে মৃত স্বামীর কাছে যাওয়ার অনুমতি পেল না বর্ধমানের সুজাতাবিয়ে হয়েছিল মাত্র মাস চারেক। তারপর বাবা-মায়ের সঙ্গে মামাবাড়ি ঘুরতে এসেছিলেন উত্তরপ্রদেশের সুজাতা।
    আটকে পড়লেন লকডাউনে। আর তাতেই জীবনের কঠিনতম সত্যের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে তিনি। ৮৭৪ কিলোমিটারের ভৌগোলিক দূরত্ব পেরিয়ে এক অন্তহীন, আলোকবর্ষের জগতে চলে গেলেন সুজাতার স্বামী। আর সুজাতা? দেখতে পারলেন না মৃত্যুশয্যায় থাকা তাঁর স্বামীকে। 'একবার শেষবারের মতো দেখতে চাই তোমায়, ফিরে এসো...'ফোনের অপরপ্রান্তে ধুঁকতে থাকা স্বামীর কাতর আবেদন শুনেছেন সুজাতা, ছটফট করেছে বেদনায়, চেষ্টা করেছেন সব বাধা তুচ্ছ করে স্বামীর কাছে যেতে... কিন্তু বুক ফাঁটা কান্না ছাড়া আর কিছুই করতে পারেননি তিনি। কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে যে লকডাউনের রাজ্যে প্রশাসনিক বিধিনিষেধ! সংসারের আঁতুড় গন্ধ কাটার আগেই সব হারাতে হল সুজাতাকে! আর এক নির্মম, কঠিন সত্যের স্বাক্ষী হয়ে থাকলাম আমরা।
মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, ক্রাইম ইজ ক্রাইম; টিকিয়াপাড়া কাণ্ডে গ্রেফতার হল মূল দুই অভিযুক্ত
ফুলবতি গৌতম ওরফে সুজাতা। বাড়ি উত্তরপ্রদেশের ফিরোজাবাদে। চার মাস আগে ওই রাজ্যেরই বাসিন্দা অজয় গৌতমের সঙ্গে বিয়ে করেন তিনি। তিন মাস সংসার করেন। এরপর বাবামায়ের সঙ্গে ঘুরতে আসেন পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানের গলসিতে, তাঁর মামাবাড়িতে। বাবা-মাই ঘুরতে আসছিলেন, কিন্তু বিয়ের পর মামাবাড়ি যাবেন বলে বায়না ধরেছিলেন সুজাতা। সেটাই তাঁর জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল সিদ্ধান্ত হল।
গলসিতে এসে লকডাউনে আটকে পড়েন সুজাতা। এদিকে, ফোনে জানতে পারেন স্বামী ভীষণ জ্বরে আক্রান্ত। ফোনে কথা হত রোজই, শেষদিনও হয়েছিল। সুজাতাকে বাড়ি ফিরে আসার জন্য বারবার বলছিলেন অজয়। সুজাতা ফোন হাতেই ঘুরে বেরিয়েছেন এক থেকে অন্য প্রশাসনিক দফতরে। একবার যাতে তাঁকে যেতে দেওয়া হয় তাঁর রাজ্যে, স্বামীর কাছে!
কিন্তু প্রশাসনিক কর্তারাও যে নিরূপায়। আন্তঃরাজ্য সীমান্ত সিল। তাই আর স্বামীর কাছে যেতে পারেননি সুজাতা। শেষে বৃহস্পতিবার  আসে নির্মম সেই খবর! অজয় আর নেই! কান্নায় ভেঙে পড়েন সুজাতা। 'একবারের জন্য দেখতে পেলাম না তাঁকে...এবার তো অন্তত যেতে দিন' গলসি থানায় কান্নায় ভেঙে পড়েছেন তিনি। কিন্তু না! এবারও অনুমতি পেলেন না তিনি। স্বামী হারিয়ে সুজাতা এখন একা। স্বামীর ঘর করা হল না তাঁর! আনন্দ প্রেম ভালোবাসার যে বিনুনিতে চার মাস আগে অজয়ের সঙ্গে সংসার বেঁধেছিলেন সুজাতা, তা এখন জীর্ণ।