রবিন মার, মা-র, ঠাপ মার

all bengali choti

বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান, হিনার Bangla Choti Story জম্মের পর বাবা মায়ের কোলে আর কোন সন্তান জম্ম নেইনি। বাবামা আরেকটি সন্তান নেওয়ার জন্য অনেক চেষ্টা করেছিল, কিন্তু তাদের সে আশা সফলতার আলো দেখেনি। শেষ পর্যন্ত অন্যকোন সন্তান পাওয়ার লোভ তাদের অন্তর থেকে ধুয়ে মুছে একমাত্র হিনাকে নিয়েই তাদের জীবনের বাকী স্বপ্ন গুলো গড়ে তোলে। বাবা মায়ের পরম আদরে হিনা ধীরে ধীরে বেড়ে উঠতে থাকে।বাবা মা দুজনেই একটা ব্যাঙ্কের কর্মচারী।


পাচ বছর পর্যন্ত বাবা মা অফিসে চলে গেলে হিনাকে কাজের পিসিই দেখা শুনা করত। হিনার ছয় বছর বয়সে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হলে মা তাকে নিয়ে চলে যেত, স্কুল শেষ হলে পিসি ব্যাংকে ছুটি অবদি অপেক্ষা করত। অবশ্যই পিসিকে ভাল বেতন দিতে হত। প্রাইমারীর গন্ডি পেরিয়ে হাই স্কুলে পা রেখেছে হিনা। বয়সের সাথে সাথে হিনার দেহের অনেক পরিবরতন হয়েছে, ছিপ ছিপে লম্বা হয়ে এ বয়সে মায়ের দৈর্ঘকে অতিক্রম করে ফেলেছে, রঙ ও রুপের তুলনায় মা হয়ে হিনার কাছে লজ্জা পায়। চেহারার অপুর্ব সৌন্দর্য যেন গ্রামের হাজারো মেয়েক ছাড়িয়ে গেছে। চিপছিপে হলেও বয়সের সাথে সাথে শরীর গঠন হলে এ মেয়ের উপর লক্ষ্য যুবকের নজর এড়াবেনা তা হলফ করে বলা যায়।



মেয়ের গঠন দেখে মাও বেশ খুশি, কেননা মেয়ে সুন্দরী হলে মাবাবার দুঃশ্চিন্তা কম থাকে। মা প্রায় বলে থাকে তুই একেবারে তোর নানীর মত হয়েছিস। হিনার সুন্দরী নারীদের মধ্যে অন্যতম ছিল।হিনা যখন ক্লাশ নাইনে উঠল, তখন তার শরীর গঠন আরো পরিবর্তন হয়ে গেল, ছিপছিপে তাকে আর বলা যায়না। বেশ হৃষ্টপুষ্ট হয়ে তাকে এত সুন্দর দেখায় যে স্কুলে যাওয়ার পথে সভ্য আর বখাটে সব যুবকই তার দিকে একবার লোভনীয় দৃষ্টিতে না তাকিয়ে পারেনা। ইদানিং তার বুকের উপর দুপাশে শক্ত হয়ে কি যেন উঠতে শুরু করেছে। হিনা প্রথম প্রথম কিছু না বুঝলেও মায়ের স্তন দেখে ধারনা করেছে তার বুকের উপর মাঝে ও দুটা কি। হিনা বুঝে একদিন তার এ ছোট্ট ফোড়াগুলো ফেপে ফুলে বিরাটাকার ধারন করবে, ঠিক মায়ের গুলোর মত।

পুকুরে স্নান করতে নামলে হিনার হাত নিজের অজান্তে তার বুকের ঐ দুটির উপর চলে যায়, ধরে দেখে,গোড়ায় দু আংগুলে টিপে দেখে। তার বুকের এ প্রস্ফুটন তার খুব ভাল লাগে।একদিন হঠাত তার যৌনাংগ হতে রক্ত বের হতে হিনা ভয় পেয়ে যায়, এই রক্ত সম্পর্কেতার কোন ধারনাই ছিলনা। প্রথমদিন সে কাউকে কিছু বলেনি, মনে করেছিল হয়ত ভাল হয়ে যাবে, কিন্তু দ্বিতীয়দিন আবার রক্ত দেখে ভয়ে ভয়ে মাকে বলল তার প্রসাবের রাস্তা দিয়ে অনবরত রক্ত ঝরছে, বলার সময় হিনা কেদে ফেলল। মা হেসে উঠে তাকে জড়িয়ে ধরে অভয় দিয়ে বলল, ভয়ের কিছু নেই, তুই বড় হয়ে গেছিস, মেয়েদের জন্য এটা আনন্দ। কান্না নয়, তুই পরিপুর্ন মেয়ে হয়ে গেছিস।এটা কারো তিনদিন, কারো সাতদিন আবার কারো দশদিন থাকে, ভয় করিস না, এ কদিন স্কুলে যেতে মা হিনাকেবারন করে দিল।
এটা কেন হল মা? হিনা জানতে চায়। এটা মেয়েদের হয়, এটা না হলে কোন মেয়ে মা হতে পারেনা। আমি কেন মা হব? কখন হব, এটা হলেকি সব মেয়ে আপনা আপনি মা হয়ে যায়?
হিনার বিস্ময়কর প্রশ্ন। আপনিয়াপনি হবে কেন, বিয়ের পরে মা হয়। বিয়ের পরে একজন মেয়ে কি করে মা হয়,বলনা মা। মা ধমক দিয়ে বলে, বাজে কথা বলিস নাত, যত বড় হবি সব ধীরে ধীরে বুঝবি। মা হিনাকে থামিয়ে দেয়। তিনদিন পরই হিনার রক্ত বন্ধ হয়ে গেল।মেন্স এর পর হিনার শরীর দ্রুত আমুল পরিবর্তন হয়ে গেল,তার চেহারায় যৌবনের আভা ফুটে উঠল, তার বুক আরো উচুহয়ে দুধগুলো আপেলের আকার ধারন করল।
সে এখন মাঝে মাঝে নিজের দুধ এবং যৌনতা নিয়ে ভাবতে থাকে, যখন একা থাকেতখন সে অন্য .মনস্ক হয়ে যৌনতার নানাদিক কল্পনা করে সময় কাটায়। কখন মা হবে, কেন মা হবে, কিভাবে মা হবে সব প্রশ্নের উত্তর খুজতে থাকে। ইদানিং ক্লাশে বান্ধবীদের সাথে মেন্স নিয়ে আলাপের সময় হিনা কবিতার কাছে সব জেনে যায়। তখন হিনার মনা আরেক্টা কল্পনা এসে দানা বাধে।
হিনা প্রায় প্রতি রাতেই একটা ব্যাপারলক্ষ্য করে, প্রায় মাঝ রাতে মা বাবার খাটটা অনেক্ষন ধরে ক্যাচর ম্যাচর শব্ধ করতে থাকে, তারপর মা ওঁ করে লম্বা টানে একটা শব্ধ করে উঠে, তারপর দুজনে বাইরে গিয়ে প্রসাব করে।
কবিতার কথায় হিনা কল্পনায় একজন নারীপুরুষের বৈবাহিক জীবনের পরবর্তী অবস্থা চিন্তা করতে থাকে। হিনাকে আনমনা দেখে কবিতা ধাক্কা দিয়ে বলে কি ভাবছিস হিনা। হিনা উত্তর দেয় না কিছুনা। স্কুল থেকে ফিরে হিনা চিন্তা করতে থাকে কখন সন্ধ্যা হবে, কখন রাত হবে, কখন মাঝ রাত হবে, তারপর মা বাবার ক্যচরম্যাচর শব্ধ দেখবে।
রাতে খাবার পর্ব শেষ করে পিসি চলে যায়, আনুমানিক দশটায় হিনা পাঠ শেষ করে, আজ হিনার কোন পাঠই শেষ হয়নি, বসে বসে শুধু সময় ক্ষেপন করেছে আর যৌনতানিয়ে চিন্তা করেছে। শুতেও হিনার ঘুম নেই।
বাবা বাতি নিভালেই হিনা বেড়ার ফাকে চোখ রেখে দাঁড়িয়ে যাবে, দেখবে ক্যাচরম্যাচর এর মুল রহস্য। দরকার হলে সারা রাত জেগে দাঁড়িয়ে দেখবে। বাবা লাইট নিভিয়ে দিয়ে ডিম লাইটাটাজ্বালিয়ে দিল, বাবা অন্ধকারে শুতে পারেনা বলে ডিম লাইটের এ ব্যবস্থা। হিনা দুঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকল, কিন্তু ক্যাচর ম্যচর এর কোন লক্ষনই দেখতা পেলনা। বরন তারা আলাপে ব্যস্ত হয়ে গেল।
মা বলছে, আচ্ছা তোমাকেত একটা কথাবলাই হয়নি । কি কথা? হিনা বড় হয়ে গেছে। তাই নাকি। তাহলেত দুঃশ্চিন্তাটা বেড়ে গেল। পাগলি মেয়েটা বলেকি জান। কি বলে। এটা কেন হল। তারপর তুমি কি উত্তর দিলে। বললাম মেয়েদের এটা না হলে মা হতে পারেনা। হিনা কি বলল। সে বলে আমি এখন কিভাবে মা হতে পারব, কখন হতে পারব।
তারপর তারপর বাবার বিস্ময়ের ভঙ্গিতে জানতে চাইল। আমি বললাম, কোন ছেলের ধোন তোর সোনায় ঢুকায়ে বীর্য ছাড়লে তুই মা হবি। মেয়েকে এভাবে বলতে পারলে তুমি। আরে না, তোমাকে বলছি আরকি,মেয়েকেত ধমক দিয়েই ঠান্ডা করে দিয়েছি।
হিনার সোনায় ধোন ঢুকানোর কথা শুনে তার সারা দেহ পলকেই তেতে গেল, কামিজ উপরের দিকে তুলে একবার নিজের সোনাটা ধরে দেখল। তারপর একটা আংগুল ঢুকাতে চেয়েও ভালভাবে ঢুকাতে পারল না।
বিছানায় গিয়ে নিজের কাপড় চোপড় খুলে উলংগ হয়ে চিত হয়ে শুয়ে আবার