তুমি হ্যাপি তাই আমিও হ্যাপি

desi girl

আমি রফিক, অনেক কষ্ট করে ভিবিন্ন জায়গায় যাচাই বাছাই করে গত মাসে খুসি কে বিয়ে করেছি। খুসি দেখতে তেমন সুন্দর নয় কিন্তু তার ছোট বোন হ্যাপি অনেক সুন্দর। হ্যাপি কথা চিন্তা করেই তার বড় বোন খুসি সাথে বাসর রাত করেছিলাম। বিয়ের পরে আমার একটাই ইচ্ছা খুসি কে বিয়ে করেছি এবার মনের মধ্যে হ্যাপি আনতে হবে। হ্যাপি আগে ছোট খাট মডেল ছিল এখন এক পার্লারের বিজ্ঞাপন করে নাম দামি মডেল। আগে অতি সহজেই যাকে বিছানায় আনতে পারতাম এখন মনে হ্য় এত সহজ হবে না, তাই  সিদ্দান্ত নিলাম যে করেই হউক হ্যাপি কে হ্যাপি করতেই হবে।
সকাল বেলা খুসি কে কয়েক টা থাপ দিয়ে বললাম চল আমরা কক্সবাজার যাই। আমার কথা সুনে খুসি বল্ল আমি আর তুমি? আমি বললাম হ্যাপি কেও নিয়ে চল তার এখন অনেক ডিমান্ড দেশের সবাই চিনে তাকে নিয়ে গেলে হোটেলে অনেক ছাড় পাওয়া যাবে। আমার কথা সুনে বউ খুসি বল্ল তুমার কথা সত্য যে করেই হউক তাকে নিয়ে যাব তুমি সুধু বল কবে কখন যাচ্ছি আমরা। আমি বল্লাম হ্যাপিকে আজ ম্যানেজ করতে পারলে আজই যাব, যেই কথা সেই কাজ আমার বউ খুসি সরাসরি হ্যাপিকে ফোন করে ম্যানেজ করে ফেল্ল – খুসি আমাকে জরিয়ে দরে বল্ল আমি ম্যানেজ করে ফেলেছি এখন রেডি হউ। আমিও তাই চেয়েছিলাম তারাতারি সবকিছু নিয়ে রেডি হয়ে বউ খুসি আর তার বোন হ্যাপি কে নিয়ে চলে গেলাম কক্সবাজার। কক্সবাজার গিয়ে খুসি কে বললাম দেখ এই এলাকায় হ্যাপির যা ডিমান্ড তাকে আলাদা রুমে রাখা যাবে না চল আমরা নামি দামি হোটেলের একটা বড় রুম নিই তার মধ্যে আমরা তিন জন এক সাথে থাকি। আমার কথা সুনে আমার বউ খুসি বল্ল তুমার কথার যুক্তি আছে - চটি৬৯ এ এরকম একটি গল্প পরেছিলাম আলাদা রুমে থাকার কারনে হোটেলের সবাই ভুগ করে চলে যায়, আমি বললাম  ঠিক কথা বলেছ এখন খুসি কে বল আমরা এক রুমেই থাকব। খুসি কে বলতেই খুসি বল্ল- আপু তুমি যা বলবে তাই বড় মডেল হইয়েছি তাই বলে তুমার কথার অবাধ্য হব। আমার চোখ শুধু আমার বউ খুসির দিকে কারন এই মুহূর্তে হ্যাপির দিকে নজর দিলে কিংবা বেশি কথা বললে বউ হয়ত আমার মতলব বুজে যাবে। হোটেলে একটা বড় রুম নিয়ে সেখানে সব কিছু রেখে  ফ্রেস হয়ে  সবাই মিলে বাহিরে গুরা গুরি করে রাত দশ টার দিকে হোটেলের রেস্তুরেন্ট এ এসে খেয়ে আবার রুমে আসলাম। এর মদ্যে আমার আবার রাতে ধুদ না খেলে গুম আসে না তাই বউ কে বললাম দেখ এত দূরে আসলাম জারনি করে রাতে জদি না গুমাতে পারি তাহলে সমস্যা হবে। বউ বল্ল বাহির থেকে তরল ধুদ কিনে নিয়ে আস তারপর খেয়ে গুমিয়ে পর আজ কোন কিছু করা যাবে না রুমে হ্যাপি আছে। আমি বললাম ঠিক আছে তারপর বাহিরে গিয়ে এক লিটার তরল ধুদ কিনে এনে তিনটে গ্লাসে ডেলে তার মধ্যে একটায় চারতে গুমের টেবলেট মিসিয়ে বউ কে দিলাম আর অন্য দুই গ্লাস একটি আমি এবং হ্যাপি মজা করে খেলাম। আমি জানি ধুদ খাবার পর বউ আমার পনের মিনিটের মধ্যেই গুমের দেশে চলে যাবে তাই ধুদ খাবার পরপর বউ কে বললাম তুমি আর হ্যাপি এক বেডে থাক আর আমি পাসের বেডে থাকছি তারপর হ্যাপি কে বললাম বাতি নিভিয়ে দিচ্ছি আর না হলে গুম হবে না। হ্যাপির স্পষ্ট জবাব ঠিক আছে দুলাবাই আপনার যা ইচ্ছা তাই করেন। এ কথা সুনে আমার ধন মহাশয় নিচ থেকে স্যলুট দিতে সুরু করল তারপর বাতি নিভিয়ে আমার বেডে গিয়ে পেন্ট খুলে হাত দিয়ে একটু ক্রিম মেখে নিলাম যাতে  রাতের বেলা কোন সমস্যা না হয়। বাতি নিবানোর প্রায় এক ঘণ্টা পর বুজলাম বউ গুমের দেশে চলে গেছে আস্তে আস্তে উলজ্ঞ অবস্থায় চলে গেলাম খুসি আর হ্যাপির বিছানায়। আমি জানি খুসি কোথায় আর হ্যাপি কোথায় শুয়েছে চুপ চাপ কোন শব্দ না করে গিয়ে সরাসরি হ্যাপির উপর জাপিয়ে পরলাম। অন্ধকারে হ্যাপি বল্ল আমি হ্যাপি আমি বললাম তুমি হ্যাপি তাই আমিও হ্যাপি।

তারপর আমি কোন কথা না  বলে মাথাটা এক্তু উঁচু করলে আমি ওর থুতনিতেধরে ওকে একটা লিপ কিস করলাম! আমি ওকে কিস করা অবস্থাতে হ্যাপির দুধ গুলা তে হাত দিয়ে সমস্ত জুড়ে একটা টিপ দিলাম আর ও ব্যাথা তে একটু শব্দ করে উঠল! আমি ওর নাইটির ভেতরে হাত ঢুকিয়ে দিলাম! আস্তে আস্তে বিছনারা সাথে চাপ দিয়ে নাইটি খুলে ফেললাম! তারপর, অন্ধকারে ওর ঠোটের বদলে আমি এখন ওর ধুদের নিপল এর চারপাশে চুষতে লাগলাম আর অন্য হাতটা আস্তে আস্তে ওর নিচের পেনটির ভেতর ডুকিয়ে আজ্ঞুলি করতে সুরু করলাম। হ্যাপি ক্রমাগত চিল্লাছে , উফ! আহ! প্লিস আর না । আমি আর পারতেছি না । প্লিস আমাকে শেষ করে ফেল!আমি আর সহ্য করতে পারতে ছি না প্লিস, হ্যাপির চিৎকার আর চেঁচামেচিতে দেখে আমার অবস্থা তো করুন । আমার নুনু বাবাজি পুরা ফুলে ফেপে দাড়িয়ে আছে আগে থেকেই! ধন টা হাতে ধরে গুদের মুখে ছুয়াতেই হ্যাপি হাত দিয়ে ধন দরে বল্ল প্লিস  ওইটা ঢুকাবেন না । কে সুনে কার কথা এত দূর এসে এত টাকা খরচ করে এখন যদি না ডুকাই তা হলে মনে হয় ধন বাবাজির অপমান হবে, এই কথা চিন্তা করে জুর করে হ্যাপির টস টসে রসালো গুদে আমার ধন ঢুকালাম। ঢুকাতেই ও আহহ করে আওয়াজ করল। আমাকে জরিয়ে ধরল। এরপর আস্তে আস্তে থাপ দিতে লাগলাম। আমাদের তালে তালে খাট নরতে থাকল। ও আস্তে আস্তে আওয়াজ করছিল। ও ওর ২ রান ও ২ হাত দিয়ে জরিয়ে ধরে ছিল। আস্তে আস্তে আমি পূর্ণ উত্তেজনায় এসে ওর ভোদায় মাল ফেললাম। পুরা শরিরটা আমার কেপে উঠল। তখন আমার ঘারে কামড়ে ধরে ছিল। হ্যাপি আমাকে বলতেছিল যে ফেল সব মাল আমার গুদ এই ফেল। ফেলে আমি হাপিয়ে ওর উপর শুয়ে রইলাম। শরীর দিয়ে দর দর করে ঘাম বের হচ্ছিল। এর আরও কিছুখন পরে আমি হ্যাপির পাছাও মেরেছি। পাছা মেরে আমার ধন হ্যাপিকে দিয়ে চুশিয়েছি। পাছা মারা খেয়ে ও অনেক বেথা পেয়েছে। চোখ দিয়ে পানি পরে গিয়েছিল। ঘামে ও মালে ভিজা আমারা ২ জন একে অপরকে জরিয়ে ধরে শুয়ে রইলাম। তারপর প্রায় এক দুই ঘণ্টা পর আমি আমার বিছানায় চলে গেলাম। তারপর হ্যাপি বল্ল যখন সময় পাবেন আমাকে হ্যাপি করবেন প্লিস।