মারিয়া শারাপোভার টেনিস অধ্যায়ের সমাপ্তি

৩২ বছর বয়সেই অবসরের কথা ঘোষণা করলেন রাশিয়ার টেনিস-সুন্দরী মারিয়া শারাপোভা। বিশ্ব টেনিসের বিখ্যাত পাঁচ জন নারী খেলোয়াড়ের মধ্যে তিনি একজন। সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে তিনি পর্যায়ক্রমে জেতেন উইম্বলডন, ইউএস ওপেন,অস্ট্রেলিয়ান ওপেন, ফ্রেঞ্চ ওপেন ও গ্র্যান্ডস্লাম। তাঁর নামের পাশে রয়েছে ২৬টি ডব্লিউটিএ শিরোপা। পৃথিবীর শীর্ষ ধনী খেলোয়াড়দের মধ্যে তিনি একজন।

৩২ বছর বয়সী এই সুন্দরী এক সময় বিশ্ব টেনিস র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থান দখল করেছিলেন। টানা ২১ সপ্তাহ এক নাম্বারে ছিলেন মারিয়া ইয়োরেভনা শারাপোভা। বর্তমান র‍্যাংকিংয়ে তাঁর অবস্থান ৮৭ নাম্বার। রাশিয়ার প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে গ্র্যান্ডস্লাম জয়ের রেকর্ড করেন তিনি। পাশাপাশি অলিম্পিকেও পদক জয়ের রেকর্ড আছে তাঁর। রাশিয়ার হয়ে ২০১২ অলিম্পিকে রৌপ্য জিতেন শারাপোভা।


ক্যারিয়ার জুড়ে আলোচিত এই টেনিস তারকা ডোপ টেস্টে পজেটিভ ধরা পড়ে কলঙ্কিত হয়েছেন। গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে অখেলোয়াড় সুলভ আচরণ করে সমালোচিতও হয়েছেন।

২০১৬ সালে ডোপ টেস্টে পজেটিভ হওয়ার কারণে ১৫ মাসের জন্য নির্বাসনে যেতে হয়েছিল সাবেক এই নাম্বার ওয়ান তারকাকে। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে তিনি টেনিস কোর্টে ফিরলেও সাথে করে তাঁর আগের ফর্মটা আনতে পারেননি। ২০১৭ সালে শারাপোভা অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে শেষ ষোলোর টিকিট পেলে তাঁর ভক্তদের মনে তাকে নিয়ে আত্মবিশ্বাসটা বেড়ে যায়। কিন্ত সেই আত্মবিশ্বাসে জল ঢেলে দিয়ে শেষ ষোল থেকেই বিদায় নেন এই রুশ সুন্দরী।


মারিয়া শারাপোভা অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শিরোপা জিতেন এক দশক আগে। অস্ট্রেলিয়াতে সেটাই এখন পর্যন্ত তাঁর শেষ শিরোপা। দীর্ঘ সময় টেনিস কোর্টে আলোচনায় থেকেছেন তিনি। কিন্তু পরবর্তী সময়ে মেলবোর্নের শিরোপাটাকে আর নিজের করার সুযোগ পাননি শারাপোভা। এছাড়াও ২০১৮ সাল থেকে তিনি নারী উদ্যাক্তাদের নিয়ে একটি প্রোগাম পরিচালনা করে আসছেন। সাম্প্রতিক সময়ে শারাপোভার তেমন কোন উল্লেখযোগ্য পারফরম্যান্স নেই বললেই চলে!

বিদায় বেলায় মারিয়া শারাপোভা জানান, ‘একমাত্র যে জীবনটাই জেনে এসেছি, সেটা কীভাবে পিছনে ফেলে এগিয়ে যাব? আমি ছোটবেলা থেকে যে কোর্টে অনুশীলন করে এসেছি, সেটা কীভাবে ছেড়ে যাব? যে খেলাটা ভালবাসি, যেটা অব্যক্ত কান্না ও অকথিত আনন্দ এনে দিয়েছে, যে খেলাটার মধ্যে পরিবারকে খুঁজে পেয়েছি। সেটা কী করে ছেড়ে যাব? আমার কাছে এটা নতুন বিষয়। আমাকে দয়া করে ক্ষমা করে দাও টেনিস। আমি বিদায় জানাচ্ছি।’